মঙ্গলবার, ১২ জানুয়ারী ২০২১, ০৪:০৫ অপরাহ্ন

কোম্পানীগঞ্জ-কবিরহাট যুবদলে মওদুদ অনুসারীদের নীলনকশার প্রস্তাবিত কমিটি ফাঁস!

বিশেষ প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর, ২০২০
কমিটি গঠনের আগেই ফাঁস হওয়া প্রস্তাবিত কোম্পানীগঞ্জ ও কবিরহাট উপজেলা ও পৌরসভা যুবদলের কমিটি।

নোয়াখালী-৫ আসনের কোম্পানীগঞ্জ এবং কবিরহাট উপজেলা ও পৌরসভা যুবদলের নতুন আহবায়ক কমিটিতে আবারও মওদুদ আহমদের দেয়া ‘প্যাড কমিটি’র নেতাদের নাম প্রস্তাবের গোপনীয়তা ফাঁস হয়ে গিয়েছে। কমিটি গঠনের পূর্বেই প্রস্তাবিত কমিটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলে আসায় এবং ত্যাগী ও ফখরুল ইসলাম পন্থীদের বাদ দিয়ে কমিটি প্রস্তাব করায় দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে চরম অসন্তোষ ও ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। আবারো আন্দোলনের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

আলহাজ্ব ফখরুল ইসলাম অনুসারীদের বাদ দিয়ে শুধু ব্যারিষ্টার মওদুদ অনুসারীদের দিয়ে আহবায়ক কমিটি গঠন করার প্রস্তাব ফাঁস হওয়ার খবরে ফুঁসে উঠছে দুই উপজেলার বঞ্ছিত ফখরুল ইসলাম পন্থী বিশাল অংশের পদপ্রত্যাশী ও মামলা হামলার শিকার নির্যাতিত নেতারা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রাপ্ত প্রস্তাবিত কমিটির মোবাইলে তোলা ছবিতে দেখা যায়, ”সুজন চৌধুরী” নামে জনৈক কোন বিএনপি/যুবদল নেতা প্রস্তাবিত এ কমিটি অনুমোদনের আগেই ফাঁস করে দিয়েছে।

একটি সূত্রে জানা গেছে, সুজন চৌধুরী নামক ওই ব্যক্তি বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমদের অফিসের একজন স্টাফ। যার মাধ্যমে প্রস্তাবিত কমিটিটি ফাঁস হয়ে এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঘুরছে।

প্রস্তাবিত কমিটি অনুযায়ী দেখা গেছে, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা যুবদলে ফজলুল করিম ফয়সলকে আহবায়ক ও জাহিদুর রহমান রাজনকে সদস্য সচিব করে ৩১ সদস্য বিশিষ্টি কমিটি এবং বসুরহাট পৌরসভায় ওবায়দুল হক রাফেলকে আহবায়ক ও মাজহারুল হক তৌহিদকে সদস্য সচিব করে ২১ সদসৗ বিশিষ্ট কমিটি প্রস্তাব করা হয়েছে।

একইভাবে কবিরহাট উপজেলা যুবদলে মো: শাহাদাত হোসেনকে আহবায়ক ও মো: আব্দুল বাসেত হিরণকে সদস্য সচিব করে ৩১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি এবং কবিরহাট পৌরসভায় মো: দেলোয়ার হোসেনকে আহবায়ক ও মো: আবু হানিফকে সদস্য সচিব করে ২১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি প্রস্তাব করা হয়েছে।

প্রস্তাবিত কমিটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলে আসায় কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা যুবদলের অনেকে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আবারও অগণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় পেছনের দরজা ব্যবহার করে গোপনে পকেট কমিটি গঠনের চেষ্টা করছেন ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমদ। আর এর পেছনে কলকাঠি নাড়ছেন তারই অফিস স্টাফ সুজন চৌধুরী।

তবে এ বিষয়টির সত্যতা জানতে সুজন চৌধুরীর মুঠোফোনে চেষ্টা করেও তাঁর সাথে যোগাযোগ করা যায়নি।

জানা যায়, গত বছরের ১১ নভেম্বর ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমদ স্বাক্ষরিত প্যাডে নিজস্ব লোকজন দিয়ে কমিটি দেয়ার পর ওই কমিটিকে মওদুদ আহমদের ‘পকেট কমিটি’ আখ্যা দিয়ে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে দলের বঞ্ছিত বিশাল একটি অংশ। পরে বিক্ষোভের মুখে জেলার নেতৃবৃন্দরা মওদুদ আহমদের দেয়া ওই কমিটি আজো অনুমোদন করেনি।

বর্তমানে আহবায়ক কমিটি গঠন করতে কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের পর আবারও মওদুদ আহমদের অফিস কর্তৃক দেয়া তালিকা অনুযায়ী ওই প্যাড কমিটিকেই যুবদলের নতুন আহবায়ক কমিটি হিসেবে প্রস্তাবের খবরে বঞ্ছিতরা আবারও ফুঁসে উঠার খবর পাওয়া গেছে। এ নিয়ে দুই উপজেলায় বিবদমান দুই গ্রুপের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। যেকোন সময় বড় আন্দোলনে নামতে পারে তারা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন পদপ্রত্যাশি যুবদল নেতা বলেন, যদি এবারও অগণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় ও আলহাজ্ব ফখরুল ইসলাম অনুসারীদের বঞ্চিত করার চেষ্টা করা হয় তাহলে বৃহত্তর আন্দোলন করা হবে।

মতামত লিখুন :

এ জাতীয় আরো খবর..

আপনি কি খুঁজছেন?

পুরোনো মাসের সংবাদ

© All rights reserved © 2019 Digital Noakhali
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazardnoakha4