বৃহস্পতিবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২১, ০৪:৫৯ পূর্বাহ্ন

নোয়াখালীর ক্রীড়াবিদ শহীদ ভুলুর চেতনার খোঁজে

নিউজ এডিটর
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০
বেগমগঞ্জে পাকিস্তানি বাহিনীর এক অতর্কিত হামলায় ৬ সেপ্টেম্বর শহীদ হন ভুলু। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর নোয়াখালীর ক্রীড়াঙ্গন ভোলেনি তাঁকে।

খেলা নিয়েই কাটত তাঁর দিনমান। নোয়াখালী জেলা ফুটবল দলের অধিনায়ক ছিলেন। খেলতেন স্থানীয় ক্রিকেট লিগে। নোয়াখালী মোহামেডান স্পোর্টিংয়ের ব্যাডমিন্টন দলেরও নিয়মিত সদস্য ছিলেন সাহাব উদ্দিন এস্কেন্দার, যিনি ভুলু নামেই পরিচিত ছিলেন সবার কাছে।

শুধু খেলা নিয়ে মেতে থাকা লোক এখন বিরল। একসময় মোটেও তা ছিল না। সেই ষাটের দশকে নোয়াখালীর ক্রীড়াঙ্গন মাতিয়ে বেড়ানো ভুলু খেলোয়াড় থেকে ক্রীড়া সংগঠকও হয়েছেন। নোয়াখালী মোহামেডান ক্লাব প্রতিষ্ঠায়ও তাঁর ভূমিকা ছিল। আরো কয়েকটি ক্লাব লক্ষ্মীনারায়ণপুর স্পোর্টিং, ঝংকার ক্লাব, পূর্বাণী ক্রীড়া সংঘ প্রতিষ্ঠায় জড়িয়ে তিনি। জেলা ক্রীড়া সংস্থার যুগ্ম সম্পাদক ছিলেন।

মুক্তিযুদ্ধের দামামা বেজে ওঠার পর অবশ্য আর কোনো পিছুটানেই ধরা দেননি তিনি, ছুটে গেছেন লাল-সবুজ পতাকা ছিনিয়ে আনার লড়াইয়ে। আজ এই দিনে বেগমগঞ্জে পাকিস্তানি বাহিনীর এক অতর্কিত হামলায় শহীদ হন ভুলু। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর নোয়াখালীর ক্রীড়াঙ্গন ভোলেনি তাঁকে। জেলা স্টেডিয়ামের নামকরণ হয়েছে তাঁর নামে। তবে আজ স্বাধীনতার প্রায় অর্ধশতাব্দী পর ‘শহীদ ভুলু স্টেডিয়াম’ লেখা নামফলক ছাড়া ভুলুর সেই ক্রীড়াচেতনা খুঁজে পাওয়া আসলে দুষ্কর। নোয়াখালী জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্য মহিউদ্দিন টুকন যেমন বলছিলেন, ‘এখন তো সব কিছুতে রাজনীতি। যখন যে দল ক্ষমতায় থাকে তারাই ক্রীড়াঙ্গন নিয়ন্ত্রণ করে। কিন্তু ভুলু ভাইদের সময় তা ছিল না। ক্রীড়া অন্তপ্রাণ হিসেবেই ক্রীড়াঙ্গনে মূল্যায়ন ছিল তাঁদের। ভুলু ভাইয়ের বড় ভাই সাহিদ উদ্দিন এস্কেন্দার কচি ছিলেন তখন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক। রিকশায় করে হয়তো কোথাও যাচ্ছেন, পথে দেখলেন ছেলেরা খেলাধুলা করছে, উনি রিকশা থামিয়ে সেখানে এগিয়ে যেতেন—তখন এই মানসিকতার ছিলেন সংগঠকরা। এখন যা বিরল।’

নোয়াখালী জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওয়াদুদ পিন্টু জানান, স্টেডিয়ামের দেয়ালে শহীদ ভুলুর একটি ম্যুরাল স্থাপনের আবেদন জানিয়েছেন তাঁরা জাতীয় ক্রীড়া পরিষদে। শহীদ ভুলুর নাম এভাবেই টিকে থাকবে নোয়াখালীর ক্রীড়াঙ্গনে, তাঁর ক্রীড়া চেতনাও অনুপ্রাণিত করবে সবাইকে; তাঁর ৪৯তম শাহাদাতবার্ষিকীতে ক্রীড়াঙ্গনের এটাই সবচেয়ে বড় চাওয়া।

মতামত লিখুন :

এ জাতীয় আরো খবর..

আপনি কি খুঁজছেন?

পুরোনো মাসের সংবাদ

© All rights reserved © 2019 Digital Noakhali
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazardnoakha4