বৃহস্পতিবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২১, ০৯:৩১ অপরাহ্ন

অবহেলিত জনপদ কোম্পানীগঞ্জের চরবালুয়ায় সম্ভাবনার হাতছানি

প্রশান্ত সুভাষ চন্দ
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১১ জুলাই, ২০২০

নোয়াখালী জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ৮নং চরএলাহী ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড চরবালুয়া নানান সমস্যা নিয়ে অপার সম্ভাবনাপূর্ন এক অবহেলিত জনপদ। এটি একটি বিচ্ছিন্ন দ্বীপ। চট্টগ্রাম জেলার সন্দ্বীপ উপজেলার উড়িরচর ও নোয়াখালী জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চরবালুয়া নিয়ে এ দ্বীপটি গঠিত। তবে উড়িরচর নামেই দ্বীপটি সর্বাধিক পরিচিত। কৃষক ও জেলে এ দুই পেশার মানুষই এখানে বসবাস করে। বামনীয়া ও মেঘনা নদী স্থলভাগ থেকে এ দ্বীপটিকে বিচ্ছিন্ন করে রেখেছে। নদীর ওপর কোন সেতু নেই। যাতায়াতের জন্য নৌকা বা ট্রলারই একমাত্র ভরসা। প্রতিদিন শত শত মানুষ নৌকা বা ট্রলার ব্যবহার করেই এ দ্বীপে যাতায়াত করে। যোগাযোগে বন্ধুর পথ হলেও কৃষিকাজ, মৎস্য চাষ ও মৎস্য আহরণে এখানে রয়েছে অপার সম্ভাবনা। আর এ সম্ভাবনা থাকার পরেও এখানকার মানুষের সংকটের শেষ নেই।

উপজেলা সদর থেকে ২০ কিলোমিটারের অধিক দূরত্বে দস্যু কবলিত এ দ্বীপের অবস্থান। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো না হওয়ায় এবং প্রশাসনের বিচরণ কম হওয়ায় জলদস্যুদের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে দ্বীপটি।

সরেজমিন দ্বীপটি ঘুরে দেখা যায়, কৃষি, মৎস্য আহরণ ও মৎস্য চাষে অপার সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও দ্বীপটি চরম অবহেলার শিকার হয়ে আছে। অতি নিম্নমানের অভ্যন্তরীন যোগাযোগ ব্যবস্থার পাশাপাশি এখানে নেই কোন স্কুল বা মাদরাসা। চিকিৎসার জন্য নেই কমিউনিটি ক্লিনিক বা হাসপাতাল। স্বাস্থ্যসেবা ও স্বাস্থ্যকর্মীহীন এ দ্বীপটিতে পরিবার পরিকল্পনায় সচেতনতা তৈরী করতে কোন মাঠকর্মী নেই। এখানে শিক্ষার হার প্রায় শূন্যের কোটায়। উপকূলীয় জেলা নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের চরবালুয়া দ্বীপটির অবস্থা এমনই।

উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা অজিত রায় জানান, ২০১১ সালের শুমারী অনুযায়ী ১০ হাজার ৮৫৮ একর আয়তন বিশিষ্ট এ দ্বীপে এক হাজার ৭৮টি পরিবারের মোট জনসংখ্যা চার হাজার ৪৯৭ জন। তার মধ্যে পুরুষ দুই হাজার ৩৪৭ জন ও মহিলা দুই হাজার ১৫০ জন। যা কোম্পানীগঞ্জের মোট জনসংখ্যার ১.৭৯%।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সৈয়দ মোঃ খালেদ জানান, ২ মার্চ ২০২০ইং তারিখে প্রকাশিত ভোটার তালিকা অনুযায়ী এ দ্বীপে মোট ভোটার সংখ্যা ৩৬১ জন। যা সেখানকার জনসংখ্যার মাত্র ৮%।

স্থানীয়দের মতে সীমানা বিরোধ থাকায় সন্দ্বীপের লোকজনের হুমকীর কারনে অনেকেই কোম্পানীগঞ্জের ভোটার না হয়ে অনেকেই উরির চরের ভোটার হয়েছে। যে কারনে এখানে ভোটারের সংখ্যা অনেক কম।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, এ দ্বীপে কৃষি জমির পরিমান পাঁচ হাজার ৯২৮ একর। উৎপাদিত কৃষি পন্যের মধ্যে ধান, সরিষা, মশুর, তিল, তিশি, মুগ, হেলন, তরমুজ ও বিভিন্ন ধরনের সবজি অন্যতম। বিশেষ করে শশা উৎপাদন ও মৎস্য আহরণের জন্য এ দ্বীপটি বিখ্যাত।

এদিকে দ্বীপটির সীমানা নির্ধারণ না হওয়ায় এর নিয়ন্ত্রন নিয়ে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চরবালুয়া ও সন্দ্বীপ উপজেলার উরির চরের অধিবাসীদের মাঝে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। যে কারনে এখানে প্রতিনিয়ত সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ বিরোধের জের ধরে গত এক দশকে বেশ কয়েকটি হত্যাকান্ডও ঘটেছে।

সীমানা নির্ধারণ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা স্যাটেলমেন্ট অফিস সূত্র জানায় , কাগজিকভাবে (নকশায়) সীমানা নির্ধারণ করা হলেও করোনা পরিস্থিতির কারনে সরেজমিন সীমানা নির্ধারণ করা হয়নি। করোনা পরস্থিতি স্বাভাবিক হলে সরেজমিন সীমানা নির্ধারণ করা হবে। তখন এ বিরোধ আর থাকবেনা।

কৃষির সম্ভাবনা বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ বেলাল হোসেন জানান, দ্বীপটির জমি খুবই উর্বর হওয়ায় এখানে প্রচুর পরিমান ধান, ডাল ও সবজি উৎপন্ন হয়। যে কারনে কৃষকদেরকে চাষাবাদে উৎসাহ দিতে উপজেলা কৃষি অফিস থেকে তাদের মাঝে ইউরিয়া, টিএসপি, এমওপি ও ডিএপি জিপসাম সার ভূর্তূকি ও বীজ প্রদানসহ প্রযুক্তিগত সহায়তা দেয়া হয়। আবার উৎপাদিত ধান বিক্রিতে সহায়তা করা হয়। অনেক গরীব কৃষককে কৃষিকার্ড করে দেয়া হয়েছে। যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে সেখানে সিডিএসপির প্রকল্প বাস্তবায়ন হয়েছে বলেও তিনি জানান।

দ্বীপটির আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ে জানতে চাইলে কোম্পানীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ আরিফুর রহমান জানান, আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রনে সেখানে পুলিশের(আরআরএফ) একটি ফাঁড়ি আছে। আবার আমরাও সেখানে পুলিশ ফাঁড়িকে সহায়তা করায় দ্বীপটির আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অতীতের চাইতে অনেক ভালো আছে। তবে দূর্গম পথ হওয়ায় সেখানে যাতায়াত করা আমাদের জন্য খুবই কষ্টসাধ্য ব্যাপার।

স্থানীয়দের অভিযোগ, সরকারের নজরদারির অভাবে দ্বীপটি অবহেলিত। স্থানীয় বাসিন্দারা এ এলাকার উন্নয়নে ও সম্ভাবনা বিকাশে সরকারের সার্বিক সহযোগিতা চান।

এসব বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফয়সাল আহমেদ বলেন, চরবালুয়া কোম্পানীগঞ্জের একটি গুরুত্বপূর্ণ এলাকা। এ এলাকার সমস্যা সমাধান ও উন্নয়নের কোন বিকল্প নেই। অচীরেই সকল সমস্যা সমাধান হয়ে সেখানে অধিকতর উন্নয়নের ছোঁয়া লাগবে।

মতামত লিখুন :

এ জাতীয় আরো খবর..

আপনি কি খুঁজছেন?

পুরোনো মাসের সংবাদ

© All rights reserved © 2019 Digital Noakhali
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazardnoakha4